How to write a business plan for investors

আপনি বিজনেসে কিভাবে সাফল্য লাভ করতে পারবেন? আমরা প্রত্যেকেই বিজনেস করি কিন্তু বিজনেসে আমরা সকলেই সবসময় সফল হয়নি। তার কারণ হলো আমরা বিজনেস শিখে বিজনেস করি না।

প্রথমে আপনাকে বিজনেস শিখতে হবে তার জন্য আপনার মডেলের দরকার। আপনার যদি কোন আইডিয়া না থাকে বিজনেস সম্পর্কে তাহলে আপনি কোনো দিনো ওই বিজনেসে সফল হতে পারবেন না।

আপনাকে আজ আমি কিছু তথ্য শেয়ার করতে চলেছি যেটি থেকে আপনি জানতে পারবেন যে বিজনেস কিভাবে করতে হয় এবং এখান থেকে সঠিক জ্ঞান আপনি পাবেন। এই বিজনেস ম্যাথুজ দিয়ে আমি নিয়েছি “The startup Book Manual” .

প্রথমেই আপনাকে আমি একটি কোম্পানির উদাহরণ দেবো আমেরিকাতে তৎকালীন একটি কোম্পানি গড়ে উঠেছিল, কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই কোম্পানি ভেসে যায় কোম্পানিটির নাম হল “Webvan“.

কোম্পানির মধ্যে অনেক যোগ্যতা ছিল যেমন একটি ভালো মারকেটিং টুলস ছিল, একটি one-click সলিউশন ম্যাথুস তারা ইউজ করেছিল, অনেক পাওয়ারফুল বিজনেস মডিউল তারা তৈরি করেছিল। এছাড়াও তাদের কাছে পুরো মার্কেটিংয়ের সাপোর্ট ছিল একটা মারকেটিং টিম ছিল তাদের আন্ডারে। একজন ভালো CEO ও নিযুক্ত করেছিল কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই ওই কোম্পানি ভেঙে পড়েছিল। মাত্র দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে আট হাজার মিলিয়ন ডলার নিয়ে সম্পূর্ণ কোম্পানিটি বন্ধ হয়ে যায় নষ্ট হয়ে যায় কোম্পানির সমস্ত স্বপ্ন। আপনার মধ্যে নিশ্চয়ই কৌতুহল হচ্ছে যে কেন এই কোম্পানির তলিয়ে গেল এত ভালো ব্যবস্থা থাকার পরেও কেন দাঁড়াতে পারল না এই কোম্পানিটি। কিন্তু অনেকেই বলছে এই কোম্পানিটি ডুবে যাওয়ার পেছনে একটি বিশেষ কারন আছে।

সেই কারণগুলি হল তারা পুরনো সিস্টেমে। মানে যেই সব বড় বড় কোম্পানিরা অনেক আগে থেকে সিস্টেম নিয়ে কাজ করছে সেই একই সিস্টেমে তারাও কাজটি শুরু করেছিল সেই সিস্টেম গুলি হল ১. কনসেপ্ট তৈরি করা। ২. প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট করা। ৩. আলফা বেটা তেস্টিং করা। ৪. তারপর লঞ্চ করে দেওয়া। এই টি Webven কিন্তু করেছিল। যে কারণে ওয়েব ভ্যান তলিয়ে যায়। এইযে সিস্টেমটির কথা আমি বললাম যে যে সিস্টেমে এভেন নিজের বিজনেস স্টার্ট করেছিল আপনার হয়তো মনে হচ্ছে যে সিস্টেমকে তো দারুন কিন্তু না এই সিস্টেমে বিজনেস করলে আপনি কোন রকম লাভ পাবেন না।

এই সিস্টেমটি অন্যান্য বড় কোম্পানি যারা আগে থেকেই গ্রো করে রয়েছে কারণ তাদের কাছে শুরু থেকেই মার্কেটিং ডেটাবেস আছে, তাদের কাছে ক্লাইন্ট আছে, এবং তাদের একটা ব্র্যান্ডিং আছে যেটা আপনার নেই।

এই ব্র্যান্ডিং টা আপনাকে করতে হবে, ছোট ছোট কম্পানি যারা মার্কেটে বড় হতে চায়, তারা নিজেদের গ্যাস্টদের ওপর বিজনেস করতে চাই আর সেখানে তারা টাকা ইনভেস্ট করে যায় এবং ধীরে ধীরে তারা ফিনিশ হয়ে যায়। একটা কথা সবসময় মনে রাখবেন আপনার সমস্ত টাকা ইনভেস্ট করার আগে অথার কি বলেছেন কাস্টমার ডিসকভারি, তারপর কাস্টমার ডেভেলপমেন্ট, তারপর কাস্টমার রিটেনশন, তারপর কোম্পানি বিল্ডিং।

সাধারণত নাইন্টি পার্সেন্ট মানুষ প্রথমেই কোম্পানি বিল্ডিং, এবং মার্কেটিং সাপোর্টের ওপর বেশি গুরুত্ব দিয়ে দেয়। যে কারণে প্রত্যেকটা কোম্পানি কিন্তু ডুবে যায়। আপনাকে প্রথমে স্টেপ নিতে হবে সেটি হল কাস্টমার ডিসকভারি। এই কাস্টমার ডিসকভারির কিন্তু একটি বড় ভাগ রয়েছে। মনে রাখবেন মনে রাখবেন আনফরচুনেটলি আপনি বড় মারকেটিং টিম বা মার্কেটিং সাপোর্ট লাগিয়ে আপনার টাকাটি নষ্ট করবেন না।

প্রথমে আপনি মার্কেট ডিসকভার করুন। আপনার প্রোডাক্ট, যে প্রোডাক্টটি আপনার মনে হবে যেন এটা মার্কেটে ছারলে এটা ভালো রেসপন্স করবেন সবাই এটা নেবে পছন্দ করবে তাহলে আপনি সব থেকে কম দাম রাখুন যেটা সবাই নিতে পারবে এবং আপনারা কোন লস হবে না সেরকম আপনি সেই রকম দাম রেখে মার্কেটে প্রডাক্টিভ ছাড়ুন। এবং দেখুন কাস্টমারের ওই সম্পর্কে কতটা ফিডব্যাক রয়েছে।

যদি দেখেন আপনারা অ্যাজবসন এবং কাস্টমারের অ্যাজেবসন এক হচ্ছে না, এখানে আপনি ফ্লেক্সিবেল হন কাস্টমারকে খুঁজে পাওয়ার পর কাস্টমারের মতামত নিন এবং কাস্টমার এর মত অনুযায়ী আপনি আপনার প্রোডাক্টকে স্টেলেবেল করুন। আপনার প্রোডাক্ট টিকে ফ্লেক্সিবল ওয়েবে চেঞ্জ করুন। এটি হলো কাস্টমার ডিসকভার।

এরপর আপনাকে একটি এম ভি পি তৈরি করতে হবে মিনিমাম ভায়াবেল প্রোডাক্ট। এম ভি পি তৈরি করার সময় আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে যে সবথেকে ইনপরটেন পয়েন্টগুলি বা যে সবথেকে ইনপরটেন সার্ভিস গুলি রয়েছে আপনার প্রোডাক্ট এর মধ্যে দেওয়া যায় সেটি আপনাকে দিয়ে দিতে হবে। তারপর ওই প্রোডাক্ট কাস্টমারের কাছে পৌঁছে দিতে হবে।

এবং দেখতে হবে আপনার কাস্টমাররা আপনি যেই কাস্টমারদের ডিসকভার করেছেন তারা আপনার ঐ প্রোডাক্ট গুলি নিচ্ছে কিনা। এবং আপনার ওই প্রোডাক্ট সম্পর্কে তাদের রিভিউ কি তাদের একচুয়াল প্রবলেম সলভ হচ্ছে কিনা। এই ব্যাপার গুলো কিন্তু আপনাকে দেখতে হবে।তারপর যেই কথাগুলো বলব সেটি হলো ওই প্রোডাক্টটি যখন আপনি মার্কেটে দিচ্ছেন তখন কাস্টমারকে ফিডব্যাক দিলো সেই ফিডব্যাক এর সঙ্গে আপনি যে এমভিপি বানিয়ে রেখেছেন, সেই এমভিপির সাথে মিলিয়ে দেখতে হবে যে আপনার এমভিপির সঙ্গে কাস্টোমারদের এমডিপি মিলছে কি না।

দেখুন কাস্টোমার হচ্ছে কিং, কাস্টোমার ই সবকিছু, কাস্টোমার যদি চায় ও আপনাকে সবার ওপরে তুলবে তাহলে তা করবেই সে। আর যদি চায় নিচে নামিয়ে দেবে তাহলে একদম নিচে নামিয়ে দেবে। আমরা শুধু অ্যাজামন করতে পারি আমরা আর কিছু করতে পারব না আপনাকে কাস্টমারকে আজ্যামশন করাতে হবে। কাস্টমারদের প্রবলেম থাকে ওই প্রোডাক্টের এমভিপি সাথে মিলিয়ে দেখতে হবে যে এমভিপির সাথে কাস্টমারদের তথ্য মিলছে কি না। এবার আপনাকে ফাইনাল পার্ট তৈরি করতে হবে আপনার এমবিপি এবং কাস্টমারদের ফিডব্যাক এই দুটো ফিডব্যাক এক জায়গায় আপনাকে ফেলতে হবে। দেখতে হবে আপনার প্রোডাক্ট দ্বারা কাস্টমারদের কতটা প্রবলেম সলভ হচ্ছে এবং যে জায়গাগুলো সেই প্রবলেমগুলো হচ্ছে না আপনাকে সেই জায়গাগুলোতে কিছু চেঞ্জ করে আবার সেই প্রোডাক্ট টিকে ছাড়তে হবে।

এবার হচ্ছে কাস্টমার ডেভেলপমেন্ট। এবার হচ্ছে সেলসের কথা এতক্ষণ পর্যন্ত আপনি কাস্টমারের ডিসকভার করলেন এবার আপনাকে সেল করতে হবে। মানে যে প্রোডাক্টটি আপনি তৈরি করেছেন সেটা আপনাকে কাস্টমারের কাছে পর্যন্ত পৌঁছে দিতে হবে এবং দেখতে হবে যে সে পকেট দিয়ে কত টাকা খরচা করে সেই প্রোডাক্ট টি কিনছে।

আপনি যদি বাড়িতে বসে থেকে বা অফিসে বসে থেকে ভাবেন যে আপনার বিজনেস গ্রো করছে আপনি কাস্টমার পর্যন্ত পৌঁছে গেছে তাহলে সেটা আপনার ভুল ধারণা হবে আপনাকে নিজে থেকে কাস্টমারের কাছে যেতে হবে। যেখান থেকে আপনার প্রোডাক্ট সেল হচ্ছে আপনাকে সেখানে পৌঁছতে হবে এবং সেখান থেকে দেখতে হবে যে আপনার প্রোডাক্টের দ্বারা তাদের প্রবলেম কতটা সলফ হচ্ছে। আপনি যে এমভিপি বানিয়েছেন তার সাথে ঐ ফিডব্যাক টি মিলিয়ে দেখতে হবে যে ওই ফিডব্যাক আর আপনার এমভিপি মিলছে কি না। এইখানেও কিন্তু আপনাকে আপনার প্রোডাক্টটি ডেভলপ করতে হবে এবং কাস্টমার ডেভলপ করতে হবে।

এবার যেটি বলব সেটি হল কাস্টমার রিটেনশন করতে হবে। এতক্ষণ আপনি কাদেরকে খুঁজেছেন যারা একদম ডিজার আপনার প্রোডাক্ট ইউজ করার জন্য যারা একদম ফ্রাস্ট্রেটেড হয়ে আছে। এবার আপনাকে পৌঁছতে হবে একচুয়ালি যাদের এই প্রোডাক্টটি প্রয়োজন। কিন্তু তাদের অতটা চাহিদা নেই ঐ সমস্ত কাস্টমারকে আপনাকে গেন করতে। যখন আপনি দেখলেন আপনার কাছে কিছু কাস্টমার ডেটা এসে গেছে এবং তারা টার্গেটেড কাস্টমার আপনার প্রোডাক্ট নিতে রাজি, দেন আপনাকে কি করতে হবে কম্পানি ডেভেলপমেন্ট। আপনাকে আপনার কোম্পানি ডেভেলপমেন্টের কাজ শুরু করতে হবে সমস্ত ফিচারস আপনার প্রোডাক্ট এর মধ্যে আপনাকে দিয়ে দিতে হবে।

সঠিকভাবে আপনাকে কোম্পানি লঞ্চ করাতে হবে। একটি সুন্দর মার্কেটিং রাখতে হবে ফাইনালি একজন সিইও একজন মার্কেটিং ম্যানেজার। সব লাগিয়ে আপনি আপনার কোম্পানিকে ধীরে ধীরে গ্ৰো করাবেন।এই পদ্ধতিতে যদি আপনি ব্যবহার করেন তাহলে অবশ্যই আপনার বিজনেস হানড্রেট পারসেন্ট গ্ৰো করবে। এবং জিরো থেকে হানড্রেড পৌঁছে যাবে আশা করি আপনাকে এই পদ্ধতিটি অনেক সাহায্য করবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *