স্বামী বিবেকানন্দের কিছু বানী

হে মহাপ্রাণ

জাগো , ওঠো

জগত দুঃখে পড়ে পাক হয়ে যাচ্ছে।

তোমার কি নিদ্রা সাজে? 

ঊনবিংশ শতাব্দীতে ভারতের নবজাগরণের অন্যতম প্রাণপুরুষ আধুনিক ভারতে শ্রষ্ঠা রূপে পরিচিত আত্মবিশ্বাসের মন্ত্রে উদ্দীপ্ত স্বামী বিবেকানন্দের মহান মূল্যবান কিছু বাণী আজ আমি আপনাদেরকে বলবো। 

আমাদের জাতীয় জীবন অতীতকালে মহৎ ছিল তাহাতে সন্দেহ নাই। আমি অকপটভাবে বিশ্বাস করি যে আমাদের ভবিষ্যৎ আরো গৌরবান্বিত। যে ভগবান এখানে আমাকে অন্ন দিতে পারেনা তিনি আমাকে স্বর্গে যে অনন্ত সুখে রাখবেন ইহা আমি বিশ্বাস করি না। 

যারা আর কাহার ওপর নির্ভর না করে কেবল আমার উপর নির্ভর করে থাকে, তাদের যা কিছু দরকার তার সব আমি জুগিয়ে দিন ভগবানের এই কথাটা তো আর স্বপ্ন বা পরিকল্পনা নয়। 

যতদিন না শরীরে যাচ্ছে অকপট ভাবে কাজে লেগে থাকো। আমার কাজ চাই। নাম, যশ, টাকাকড়ি কিছুই চাইনা আমার। কার ওপর হুকুম চালানোর চেষ্টা করো না। যে অপরের সেবা করতে পারে সেই যথার্থ সর্দার হতে পারে। 

তিনি বলেছেন সত্যের জন্য সবকিছু ত্যাগ করা চলে কিন্তু কোন কিছুর জন্য সত্যকে বর্জন করা চলে না। সত্যের অনুসন্ধান মানে সত্যের প্রকাশ।

পাহাড় যদি মহাম্মদের নিকট না যায় তাহলে মহাম্মদ কেই পাহাড়ের নিকট নিয়ে যাবেন। অর্থাৎ গরিব বাচ্চারা যারা স্কুলে গিয়ে লেখাপড়া শিখতে পারে না তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে লেখাপড়া শেখাতে হবে। আপনার ভালো কেবল পরের ভালোয় হয় আপনার মুক্তি ও ভক্তি পরের মুক্তি ও ভক্তিতে হয়। তাই লেগে যাও, মেতে যাও, উন্মাদ হয়ে যাও। ঠাকুর যেমন তোমাদের ভালোবাসতেন, আমি যেমন তোমাদের ভালোবাসি, তেমন তোমরাও জগতকে ভালোবাসো দেখি। 

সমগ্র জগতের ইতিহাস আলোচনা করলে দেখতে পাবে মহাপুরুষের বাণী চিরকাল বড় বড় স্বার্থ ত্যাগ করেছেন, আর সাধারন মানুষ তার সুফল ভোগ করেছে। 

যদি তুমি পবিত্র হও, যদি তুমি বলবান হও, তাহা হইলে তুমি একাই সমগ্র জগতের সমকক্ষ হইতে পারিবে। 

কোন ধর্মকে ফলপ্রসূ করতে হলে তা নিয়ে একেবারে মেতে যাওয়া দরকার। অথচ যাতে সংকীর্ণ সাম্প্রদায়িক ভাব না আসে, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। 

ভারতবর্ষে জয় ইংরেজদের পক্ষে এত সহজ হয়েছিল কেন ? যেহেতু তারা একটি সংগবদ্ধ জাতি ছিল, আর আমরা তাহা ছিলাম না। আমার লক্ষ্য কেবল ভেতরের আত্মতত্ত্বের দিকে, সেইটি যদি ঠিক করা যায় তাহলে বাকি সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে, এটা আমার মত। 

সাহস অবলম্বন করো ভয় পেয়ো না, আমাদের নির্ভীক হতে হবে তাহলেই কাজে সিদ্ধিলাভ করতে পারবো। ওঠো, জাগো, কারণ তোমাদের মাতৃভূমি এই মহাবলি প্রার্থনা করেছেন।

প্রেমই জীবন, উহাই জীবনের একমাত্র গতি নিয়ামক। স্বার্থপরতাই মৃত্যু, জীবন থাকিতেও ইহাই মৃত্যু, আর দেহাবসানেও এই স্বার্থপরতাই প্রকৃত মৃত্যু স্বরূপ । 

যে যা বলে বলুক আপনার গোঁয়ে চলে যাও, দুনিয়া তোমার পক্ষে দুনিয়া তোমার পায়ের তলায় চলে আসবে। তিনি বলেছেন “ আমরণ কাজ করে যাও আমি তোমাদের সঙ্গে রয়েছি”। আর আমার শরীর চলে গেলেও আমার শক্তি তোমাদের সঙ্গে কাজ করবে। 

আশাকরি স্বামী বিবেকানন্দের যে বানী গুলি আমি আপনাদের সামনে তুলে ধরলাম এগুলি আপনাদের জীবনের পথের দিশা দেখাবে এবং আপনাদের নিজেদের সাফল্যের পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে। 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *