বার্টন রাসেলের কিছু নীতি

চিন্তা করার মানসিকতাকে কখনো নিঃউৎসাহ করো না, কারণ একমাত্র চিন্তার মাধ্যমে তুমি সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। কারন চিন্তা ছাড়া সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না। 

বিংশ শতকের বিশ্বের বিখ্যাত ব্যক্তিদের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি ছিলেন মানবতাবাদী এবং বিজ্ঞান ও গণিত শাস্ত্র বিশারদ দার্শনিক ব্যক্তিত্ব বার্টন রাসেল। 1950 খ্রিস্টাব্দে তিনি নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর যুদ্ধবিরতি বিশ্বজনমত গঠনে তিনি মতামত প্রকাশ করে নিবন্ধ লেখার অপরাধে 1918 খ্রিস্টাব্দে দণ্ডিত হয়ে কারাবাস ভোগ করেন।

রাসেলের জ্ঞানের গভীরতা ছিল অতুলনীয়, তাঁর রচিত বিশ্ব বিখ্যাত গ্রন্থ সমূহের মধ্যে অন্যতম ছিল “Why I’m not a Christian” গ্ৰন্থ। রাসেল একজন মানবতাবাদী ব্যক্তি ছিলেন, যেখানেই অবিচার-বৈষম্য আর শাসকের অত্যাচার সেখানেই তিনি তার কলঙ্কের প্রতিবাদের অস্ত্র হিসাবে কাজে লাগিয়েছিলেন। তিনি ছিলেন সক্রিয় ব্যক্তিত্ব যিনি শোষণ-নিপীড়ন অজ্ঞতা কুসংস্কারের বিরুদ্ধে আজীবন আপোষহীন সংগ্রাম করে গিয়েছিলেন। 

রাসেল ক্রিমব্রিজ শহরে ড্রীনটি ইউনিভার্সিটি থেকে গণিত ও দর্শন শাস্ত্রে প্রথম শ্রেণি অর্জন করেছিলেন। 31 বছর বয়সে বিশ্বমানের গ্রন্থসমূহ রচনা আরম্ভ করেছিলেন এই মহান সমালোচক সমাজবাদী বিখ্যাত গণিত শাস্ত্রকার রাসেলের কিছু অনুপ্রাণিত মূল্যবান বাণী আমি আজকে আপনাদের জানাবো। 

কোন ব্যাপারে পুরোপুরি নিশ্চিত হয় না, চিন্তন প্রক্রিয়া কখনই প্রমাণ গোপন করার চেষ্টা কর না, কারণ প্রমাণকে চিরদিন লুকিয়ে রাখা সম্ভব নয়। যখন তুমি বিরোধী পক্ষের মুখোমুখি হবে যদি বিরোধী পক্ষ তোমার স্বামী বা সন্তান ও হয়। যুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে পরিস্থিতির মোকাবেলা করার চেষ্টা কর। অন্যের কর্তৃত্বের ওপর বিন্দুমাত্র শ্রদ্ধাবোধ রেখোনা। কারণ সব সময়ই পরস্পর বিরোধী কর্তৃত্বের দেখা মেলে। 

কোন একটি কর্তৃত্ব কখনও সঠিক হতে পারে না সেখানে থাকে অন্ধত্ব আর অহংকার। যেসব মতামত তোমার কাছে ক্ষতিকর বলে প্রমাণিত হয় তাদেরকে কখনোই তুমি বল প্রয়োগের মাধ্যমে দমন করার চেষ্টা করো না কারণ তা যদি তুমি করো সেই মতামত গুলো তোমাকে দমন করে ফেলবে।

তোমার চিন্তাধারা চিন্তাভাবনা অদ্ভুত, এই বলে তুমি ভীত হয়ো না কারণ বর্তমানে প্রচলিত সমস্ত চিন্তা ভাবনাই একসময় অদ্ভুত ছিল। একটা কথা মনে রাখবে তুমি অদ্ভুত চিন্তা করতে পারো কিন্তু অপর কেউ সেই চিন্তা করতে পারে না তাই তোমার চিন্তাকে সকলে অদ্ভুত বলছে।

অপ্রত্যক্ষভাবে মতানৈক্যে না পৌঁছে ভিন্নমত প্রশন করো এতে তুমি অনেক সাফল্য পাবে। সত্যবাদী হও এমন কি সত্যটা যদি অপ্রীতিকর হয় তবুও কারন সত্য প্রকাশ করার চেয়ে সত্য লুকিয়ে রাখার চেষ্টা টি আরো বেশি অপ্রীতিকর। বেকার স্বর্গে বাস করাদের দেখে হিংসা করো না কারণ ওই অবস্থাকে সুখ ভাবা একমাত্র বোকাদের পক্ষে সম্ভব। 

তোমার পরিশ্রমের যদি একটি ছোট্ট কুঁড়ে ঘরও হয়, তাকে তুমি মাথায় করে রেখো। কারন সেটা তোমার তৈরি সেখানে তুমি স্বাধীন। বিবাহ হচ্ছে নারীর জন্য শুধু সাধারণ একটি জীবিকা। সম্ভবত এক্ষেত্রে অনিচ্ছা সত্ত্বেও যৌনকর্মীদের সঙ্গে পরিমাপ পতিতাবৃত্তি চেয়ে বেশি।

ঘৃণা তৈরি করলেই প্ররোচনা বেশি সফল হয়। আমি কখনো নিজের বিশ্বাসের জন্য প্রাণ দেব না, কারণ সেটি ভুল হতে পারে। একটা কথা মনে রাখবে বিশ্বের মূল সমস্যা হচ্ছে বোকা এবং গোড়া লোকেরা সব সময় নিশ্চিন্ত থাকে।জ্ঞানী লোকেরা সব সময় সংশয় থাকে। 

বার্ট্রান্ড রাসেলের কিছু অনুপ্রেরণা মূলক উক্তি এবং কিছু স্বাধীন বক্তব্য আপনার সামনে তুলে ধরলাম। যদি আপনি এই উক্তি গুলি মেনে চলেন তাহলে অবশ্যই আপনি জীবনে সফল হতে পারবেন। 


Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *