আপনি কি করবেন?

প্রাচীন ভারতীয় পন্ডিত দার্শনিক ও রাজ উপদেষ্টা চাণক্য বা কৌটিল্য পাঞ্জাব প্রদেশের তক্ষশীলায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার অসাধারণ পাণ্ডিত্য ও তীক্ষ্ণ বুদ্ধি বলে মৌর্য সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠায় অংশগ্রহণ করেন। তার অসাধারণ পাণ্ডিত্য “অর্থশাস্ত্র” নামক গ্রন্থে লিপিবদ্ধ করেছিলেন। যার কাছে অর্থ নেই কিন্তু বিদ্যা রয়েছে প্রকৃত পক্ষে সে নির্ধন নয়। প্রকৃতপক্ষে সেই গরীব ও নির্ধন যার কাছে বিদ্যা নেই। এককথায় বিদ্যা হলো প্রকৃত ধন সম্পদ। আজ থেকে আমি এই বাক্যগুলি পালন করব।

জীবন কাটাব আনন্দের সাথে, পরিষ্কার জল পান করবো, কথা বলবো চিন্তা ভাবনা করে স্বাস্থ্য সম্মত ভাবে এবং কাজ করব সাবধানের সাথে।

যার ইন্দ্রিয় সুখ প্রয়োজন, তার সব রকম বিচার জ্ঞান ত্যাগ করা দরকার। আর যার জ্ঞান প্রয়োজন তার ইন্দ্রিয় সুখ কে বর্জন করা দরকার। যে ইন্দ্রিয় সুখ ভোগ করে সে জ্ঞান আরোহন করতে পারেনা। এককথায় ইন্দ্রিয় সুখ ও জ্ঞান একসাথে আরোহন করা সম্ভব নয়।

এমন কি বিষয় আছে যা কল্পনায় আসে না। এমন কি কাজ আছে যা নারী করতে পারেনা।

এমন কি খারাপ কাজ আছে যা মাতাল করে না। এমন কি জিনিস আছে যা কাক ভক্ষণ করে না।

নিয়তির খেলা বোঝা সম্ভব নয়, নিয়তি এক ভিখারি কে রাজা এবং রাজাকে ভিকারি করে দিতে পারে। এক ধনীকে দরিদ্র এবং এক দরিদ্রকে ধনী ব্যক্তিতে পরিণত করতে পারে।

এক ভিখারি একজন কৃপণ মানুষের শত্রু, একজন জ্ঞানী ব্যক্তি একজন মূর্খ ব্যক্তির শত্রু, একজন মহিলা যে পর পুরুষের সাথে সম্পর্ক রাখে স্বামী তার প্রধান শত্রু। চাঁদ হল একজন চোরের প্রকৃত শত্রু। বিদ্যা, জ্ঞান, সৎগুন, দয়া, শুভবুদ্ধি যার নিকট এগুলির একটিও নেই সে পৃথিবীতে বিচরণকারী একজন অপদার্থ পশুর সমান। যে পৃথিবীর বোঝা স্বরুপ। যার বোঝার কোনো ক্ষমতা নেই সে উপদেশাবলি বোঝার শক্তি রাখেনা। ঠিক যেমন বাসকে মলয়-পর্বতের রোপন করলেও সে কোন সুভাষ প্রদান করে না।

একজন মূর্খ ব্যক্তির কাছে শাস্ত্র জ্ঞানের কোন দাম নেই , যেমন একজন অন্ধের কাছে আয়নারে কোন দাম নেই। পৃষ্টভাগ কে যতই পরিষ্কার করা হোক না কেন সম্মুখ শরীরের সমান কখনো পরিষ্কার করা যায় না। তেমনি একজন অসৎ ব্যক্তিকে যতই সততার বাণী শোনানো হোক না কেন সে সততার পথ অনুসরণ করে না।

একজন আত্মীয়ের অসম্মানের প্রতিফলে জীবন যেতে পারে, অপর ব্যক্তিকে অসম্মানের প্রতিফলে সম্পদ যেতে পারে, এবং একজন রাজাকে অসম্মান করার প্রতিফলে সমস্ত কিছু চলে যেতে পারে, আপনি জঙ্গলে চলে যান, গাছের নিচে রাত কাটান, বনের ফল খেয়ে জীবন ধারণ করুন, শ্বাপদ অরণ্যে বসবাস করুন, কিন্তু আপনি আপনার সঙ্গী সাথীদের সাথে থাকবেন না যদি আপনি নির্ধন হয়ে যান।

বৃক্ষের উপর রাত্রে অনেক পক্ষী আশ্রয় নেয়, এবং ভোর হতেই সকালে উরে যায়। তেমনি অনেক দুঃখ উপস্থিত হয় এবং দূরীভূত হয়ে যায়। বৃক্ষ না থাকলে যেমন পাখিরা আশ্রয় নিতে পারে না তেমনি জীবন অতি গুরুত্বপূর্ণ, দুঃখ আসে আবার চলে যায় কিন্তু জীবন ঠিক থেকে যায়।বিদ্যা ও বুদ্ধি সবচেয়ে শক্তিশালী, বুদ্ধিহীন ব্যক্তির কাছে কিবা শক্তি থাকে। বুদ্ধি বলে এক খরগোশ এক বলশালী হাতি কে পরাজিত করতে পারে। আশা করি এই নীতি গুলি আপনাকে জীবনের পথে চলতে অনেক সাহায্য করবে এবং আপনি যদি নিজেকে সফল করতে চান তাহলে এই নীতি গুলি অবশ্যই মেনে চলুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *